ঢাকা ১১:২২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোটচাঁদপুরে নারীকে কুপিয়ে হত্যা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:৩১:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ জুন ২০২২
  • / ২৫২ বার পড়া হয়েছে

কোটচাঁদপুর প্রতিনিধিঃঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে তসলিমা খাতুন (৩৬) নামে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার দোড়া ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের একটি মাঠ থেকে পুলিশ ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে।

কোটচাঁদপুর থানার ওসি মঈন উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বুধবার সন্ধায় লক্ষীপুর গ্রামের ইজিবাইক চালক আলম মন্ডলের স্ত্রী মোবাইলে কথা বলতে বাড়ির বাইরে যায়।

পরে আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে রাত ৯ টার দিকে বাড়ির পাশের মাঠে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্বজনরা। দুর্বৃত্তরা তাকে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা করে একটি ঘাষের জমিতে ফেলে রাখে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

তিন সন্তানের জননী ওই নারীকে কি কারণে হত্যা করা হয়েছে, তা জানাতে পারেনি পুলিশ। নিহতের স্বামী আলম মন্ডল বলেন, বুধবার সন্ধায় আমার স্ত্রী তসলিমা বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। রাতে খোঁজ পায় বাড়ি থেকে ২’শ গজ দূরে একটি ঘাসের জমিতে তার লাশ পড়ে আছে।

আলম বলেন, জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আমার চাচাতো ভাই কালাম, মিজানুর ও ইজাজুলের সঙ্গে আমার পরিবারের বিরোধ চলছিল। তারাই আমার স্ত্রীকে হত্যা করেছে। এঘটনায় নিহতের বড় ভাই মোস্তফা মন্ডল বাদী হয়ে থানায় অজ্ঞাত আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

কোটচাঁদপুরে নারীকে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট সময় ০৪:৩১:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ জুন ২০২২

কোটচাঁদপুর প্রতিনিধিঃঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে তসলিমা খাতুন (৩৬) নামে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার দোড়া ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের একটি মাঠ থেকে পুলিশ ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে।

কোটচাঁদপুর থানার ওসি মঈন উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বুধবার সন্ধায় লক্ষীপুর গ্রামের ইজিবাইক চালক আলম মন্ডলের স্ত্রী মোবাইলে কথা বলতে বাড়ির বাইরে যায়।

পরে আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে রাত ৯ টার দিকে বাড়ির পাশের মাঠে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্বজনরা। দুর্বৃত্তরা তাকে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা করে একটি ঘাষের জমিতে ফেলে রাখে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

তিন সন্তানের জননী ওই নারীকে কি কারণে হত্যা করা হয়েছে, তা জানাতে পারেনি পুলিশ। নিহতের স্বামী আলম মন্ডল বলেন, বুধবার সন্ধায় আমার স্ত্রী তসলিমা বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। রাতে খোঁজ পায় বাড়ি থেকে ২’শ গজ দূরে একটি ঘাসের জমিতে তার লাশ পড়ে আছে।

আলম বলেন, জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আমার চাচাতো ভাই কালাম, মিজানুর ও ইজাজুলের সঙ্গে আমার পরিবারের বিরোধ চলছিল। তারাই আমার স্ত্রীকে হত্যা করেছে। এঘটনায় নিহতের বড় ভাই মোস্তফা মন্ডল বাদী হয়ে থানায় অজ্ঞাত আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।