ঢাকা ০৬:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজ

জুড়ী নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:৩৬:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ জুন ২০২২
  • / ২০১ বার পড়া হয়েছে

জুড়ী প্রতিনিধিঃ  মৌলভীবাজারের জুড়ী নদীর তীরে অবৈধ ভাবে গড়ে তোলা স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বুধবার (১ জুন) দুপুরে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারী।
জানা যায়, গত বছর জুড়ী নদী দখলমুক্ত করার পর কামিনীগঞ্জবাজার ও ভবানীগঞ্জবাজারের সংযোগ ব্রীজের দুইপাশের নিচের অংশ দখল করে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয় দোকানপাট।

একপাশের অংশ কামিনীগঞ্জবাজার প্রান্তে মেঝে পাকা করে টিনশেডের দোকান গড়ে তুলে স্যানিটারী ও স্টিলের মালামাল বিক্রির ব্যবসা করছিলেন আবুল খায়ের। তিনি দক্ষিণ জাঙ্গিরাই গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে।

এছাড়াও এ ব্রীজের অপর অংশ ভবানীগঞ্জবার প্রান্তে নদীর জায়গা দখল করে দোকান নির্মাণ করেন খালেদ শিকদার ও আসুক আহমদ নামে দুই ব্যক্তি। এতে নদী দখলের পাশাপাশি বাজারের পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবি) যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। অভিযানে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারীর নেতৃত্বে অভিযানে উপস্থিত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ড মৌলভীবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মো. আল আমিন, জুড়ী থানার এসআই অনিক রঞ্জন দাসসহ পুলিশের একটি দল।

উচ্ছেদ অভিযানে অংশ নেওয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডে মৌলভীবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মো. আল আমিন বলেন, উপজেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে নদীর এ অংশটি দখলমুক্ত করা হয়েছে। যারা নদী দখল করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জুড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারী বলেন, নদীর গতিপথ রোধ করে অবৈধ ভাবে নদী দখল করে অবৈধভাবে স্থাপনা তৈরি করায় তা উচ্ছেদ করা হয়েছে। নদী দখল কারীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

জুড়ী নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

আপডেট সময় ০৬:৩৬:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ জুন ২০২২

জুড়ী প্রতিনিধিঃ  মৌলভীবাজারের জুড়ী নদীর তীরে অবৈধ ভাবে গড়ে তোলা স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বুধবার (১ জুন) দুপুরে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারী।
জানা যায়, গত বছর জুড়ী নদী দখলমুক্ত করার পর কামিনীগঞ্জবাজার ও ভবানীগঞ্জবাজারের সংযোগ ব্রীজের দুইপাশের নিচের অংশ দখল করে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয় দোকানপাট।

একপাশের অংশ কামিনীগঞ্জবাজার প্রান্তে মেঝে পাকা করে টিনশেডের দোকান গড়ে তুলে স্যানিটারী ও স্টিলের মালামাল বিক্রির ব্যবসা করছিলেন আবুল খায়ের। তিনি দক্ষিণ জাঙ্গিরাই গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে।

এছাড়াও এ ব্রীজের অপর অংশ ভবানীগঞ্জবার প্রান্তে নদীর জায়গা দখল করে দোকান নির্মাণ করেন খালেদ শিকদার ও আসুক আহমদ নামে দুই ব্যক্তি। এতে নদী দখলের পাশাপাশি বাজারের পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবি) যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। অভিযানে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারীর নেতৃত্বে অভিযানে উপস্থিত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ড মৌলভীবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মো. আল আমিন, জুড়ী থানার এসআই অনিক রঞ্জন দাসসহ পুলিশের একটি দল।

উচ্ছেদ অভিযানে অংশ নেওয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডে মৌলভীবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মো. আল আমিন বলেন, উপজেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে নদীর এ অংশটি দখলমুক্ত করা হয়েছে। যারা নদী দখল করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জুড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রতন কুমার অধিকারী বলেন, নদীর গতিপথ রোধ করে অবৈধ ভাবে নদী দখল করে অবৈধভাবে স্থাপনা তৈরি করায় তা উচ্ছেদ করা হয়েছে। নদী দখল কারীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।