ঢাকা ১১:০০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ভাগনীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামা শ্রীঘরে

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:২৪:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ অগাস্ট ২০২২
  • / ৩৭৪ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি -মৌলভীবাজারের জুড়ীতে ভাগনীকে ধর্ষণের অভিযোগে কাশেম মিয়া (৩২) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আসামী উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের শামসু মিয়ার ছেলে।

রবিবার (২১ আগস্ট) ভোরে কাশেম মিয়াকে নিজবাড়ী থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতা মেয়েটি অভিযুক্ত কাশেম মিয়ার আপন জেঠালির মেয়ে। কাশেম আত্বীয়তার সূত্রে সে প্রায়ই তাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করতো। আসা-যাওয়ার এক পর্যায়ে মেয়েটির সাথে প্রেমের  সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ১৯ আগস্ট কৌশলে সে মেয়েটিকে ফুঁসলিয়ে পার্শ্ববর্তী উপজেলা কুলাউড়ায় নিয়ে যায়। সেখানে এক গোপনস্হানে রেখে মেয়েটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে দুই দিন ধরে  ধর্ষণ করে।

এ ঘটনার জানাজানি হলে এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ ধর্ষক কাশেমকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে এবং ভিকটিম কে পুলিশে হেফাজতে নিয়ে আসেন। পরে মেয়েটির মা থানায় বাদী হয়ে অভিযুক্ত কাশেমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামির বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা নং-০৭ তারিখ ২১/৮/২০২২

জুড়ী থানার  অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী আসামী আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ভাগনীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামা শ্রীঘরে

আপডেট সময় ০৪:২৪:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ অগাস্ট ২০২২

বিশেষ প্রতিনিধি -মৌলভীবাজারের জুড়ীতে ভাগনীকে ধর্ষণের অভিযোগে কাশেম মিয়া (৩২) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আসামী উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের শামসু মিয়ার ছেলে।

রবিবার (২১ আগস্ট) ভোরে কাশেম মিয়াকে নিজবাড়ী থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতা মেয়েটি অভিযুক্ত কাশেম মিয়ার আপন জেঠালির মেয়ে। কাশেম আত্বীয়তার সূত্রে সে প্রায়ই তাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করতো। আসা-যাওয়ার এক পর্যায়ে মেয়েটির সাথে প্রেমের  সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ১৯ আগস্ট কৌশলে সে মেয়েটিকে ফুঁসলিয়ে পার্শ্ববর্তী উপজেলা কুলাউড়ায় নিয়ে যায়। সেখানে এক গোপনস্হানে রেখে মেয়েটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে দুই দিন ধরে  ধর্ষণ করে।

এ ঘটনার জানাজানি হলে এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ ধর্ষক কাশেমকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে এবং ভিকটিম কে পুলিশে হেফাজতে নিয়ে আসেন। পরে মেয়েটির মা থানায় বাদী হয়ে অভিযুক্ত কাশেমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামির বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা নং-০৭ তারিখ ২১/৮/২০২২

জুড়ী থানার  অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী আসামী আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।