ঢাকা ১২:০৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৫ জুন ২০২৩, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ভ্রাম্যমাণ আদালত জেরা করায় মৌলভীবাজারে বাইকে আগুন

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৩৬:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ মে ২০২৩
  • / ২১৭০ বার পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজার২৪ ডেস্ক: মৌলভীবাজারের শহরতলীর জগন্নাথপুর এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে জেরা করায় ক্ষোভে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে দেন মামুন আহমদ নামের এক যুবক।‌

 

রোববার (৭ মে) দুপুরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহিরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় মোটরসাইকেল চালক মামুন আহমদ নিজের মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়ার দৃশ্য ভিডিও করে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করেন।

মামুন আহমদ বলেন, গতকাল আমি মোটরসাইকেলের কাজের জন্য ওয়ার্কশপে নিয়ে যাই। কিছু কাজ করার পর রাতে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি চলে আসি। আজ দুপুরে বাড়ি থেকে পাম্পে এসে মোটরসাইকেলের তেল কিনে আবার ওয়ার্কশপে যাওয়ার পথে ভ্রাম্যমাণ আদালত আমাকে আটক করে। তখন আমি জানায় যে আমার মোটরসাইকেলের কাগজসহ সকল কিছু আছে এবং সেগুলো ওয়ার্কশপে রাখা আছে। এ সময় তারা আমাকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বলেন। আমি সাদা কাগজে স্বাক্ষর করিনি। পরে তারা আমার নাম-ঠিকানা লিখে স্বাক্ষর করার জন্য বলে। আমি তাতেও স্বাক্ষর করিনি। একপর্যায়ে স্বাক্ষর করার জন্য তারা আমাকে জোর করে। এতে ক্ষোভে আমি আমার মোটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে দিই।

 

এ বিষয়ে জানতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহিরার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

 

মৌলভীবাজার মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন, শ্রীমঙ্গল সড়কে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন। এক মোটরসাইকেল চালককে জেরা করায় সে নিজের বাইকে নিজেই আগুন ধরিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। পরে পুলিশ মোটরসাইকেলটি জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

ভ্রাম্যমাণ আদালত জেরা করায় মৌলভীবাজারে বাইকে আগুন

আপডেট সময় ০৩:৩৬:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ মে ২০২৩

মৌলভীবাজার২৪ ডেস্ক: মৌলভীবাজারের শহরতলীর জগন্নাথপুর এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে জেরা করায় ক্ষোভে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে দেন মামুন আহমদ নামের এক যুবক।‌

 

রোববার (৭ মে) দুপুরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহিরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় মোটরসাইকেল চালক মামুন আহমদ নিজের মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়ার দৃশ্য ভিডিও করে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করেন।

মামুন আহমদ বলেন, গতকাল আমি মোটরসাইকেলের কাজের জন্য ওয়ার্কশপে নিয়ে যাই। কিছু কাজ করার পর রাতে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি চলে আসি। আজ দুপুরে বাড়ি থেকে পাম্পে এসে মোটরসাইকেলের তেল কিনে আবার ওয়ার্কশপে যাওয়ার পথে ভ্রাম্যমাণ আদালত আমাকে আটক করে। তখন আমি জানায় যে আমার মোটরসাইকেলের কাগজসহ সকল কিছু আছে এবং সেগুলো ওয়ার্কশপে রাখা আছে। এ সময় তারা আমাকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বলেন। আমি সাদা কাগজে স্বাক্ষর করিনি। পরে তারা আমার নাম-ঠিকানা লিখে স্বাক্ষর করার জন্য বলে। আমি তাতেও স্বাক্ষর করিনি। একপর্যায়ে স্বাক্ষর করার জন্য তারা আমাকে জোর করে। এতে ক্ষোভে আমি আমার মোটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে দিই।

 

এ বিষয়ে জানতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহিরার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

 

মৌলভীবাজার মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন, শ্রীমঙ্গল সড়কে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন। এক মোটরসাইকেল চালককে জেরা করায় সে নিজের বাইকে নিজেই আগুন ধরিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। পরে পুলিশ মোটরসাইকেলটি জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।