ঢাকা ০২:০১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজ
মৌলভীবাজারে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত লাখাইয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতে আরো কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনে উ্যসাহিত ও অনুপ্রাণিত করবে —প্রফেসর ডাঃ জামাল উদ্দিন ভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে ইউপি চেয়ারম্যান থেকে পদত্যাগ লাখাইয়ে চোরাই মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার – ২ সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১০ টাকা বাড়ল লাখাইয়ে জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের সাথে ডিডিএলজি’র মতবিনিময় আমাদের দেশ থেকে নির্বাচন নির্বাসনে চলে গেছে’ সাবেক এমপি নাসের রহমান মৌলভীবাজার ৩ উপজেলায় মনোনয়ন জমা দিলেন ৩৭ জন ভালো মানুষরা এগিয়ে না এলে সমাজ আলোকিত হবে না…মাওলানা হুছাম উদ্দিন চৌধুরী এমপি

মৌলভীবাজার-১ আসন ডামি প্রার্থী পায়নি আওয়ামী লীগ!

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১২:১৯:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩
  • / ৭৬৪ বার পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্টঃ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর পাশাপাশি ডামি প্রার্থী রাখার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে অনুযায়ী দেশের প্রায় প্রতিটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের অন্য প্রার্থীরা স্বতন্ত্র পদে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু মৌলভীবাজার-১ (জুড়ী-বড়লেখা) আসনে আওয়ামী লীগের কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থী হননি। পার্শ্ববর্তী কুলাউড়া আসনে আওয়ামী লীগের তিন প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচনের ঘোষণা দিলেও মৌলভীবাজার-১ আসনে দলীয় ডামি প্রার্থী নেই।

জানা যায়, ২০১৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামী লীগের একমাত্র প্রার্থী ছিলেন শাহাব উদ্দিন আহমদ। এর আগে টানা দুইবারসহ তিনবারের সংসদ সদস্য ছিলেন তিনি। এক সময়ের দাপুটে নেতা সিরাজুল ইসলাম, ইমান উদ্দিন আহমদের পর এ আসনে আওয়ামী লীগের উপযুক্ত নেতৃত্ব তৈরী হয়নি। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে শাহাব উদ্দিন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হওয়ার পর সিরাজুল ইসলাম দলে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। এরপর স্থানীয় পর্যায়ে আ’লীগে যে নেতৃত্বশূন্যতা দেখা দেয় সেটা ২০২৩ সালেও বিরাজ করছে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে নৌকার জন্য ৫ জন প্রার্থী মনোনয়ন চাইলেও বর্তমান এমপি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী শাহাব উদ্দিনকেই বেছে নেয় দল। এই আসনে ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, কুলাউড়া থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম দলীয় মনোনয়ন কেনেন। তবে তাদের কেউই ডামি প্রার্থী হতে আগ্রহী নন।

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন তরুণ নেতা হিসেবে এ এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নৌকার বিপক্ষে গিয়ে নির্বাচন করতে আগ্রহী হননি। এ প্রসঙ্গে সমকালকে জাকির হোসাইন বলেন, এই দুই উপজেলার মানুষ নানাভাবে অনুরোধ করছে বিদ্রোহী প্রার্থী হতে। কিন্তু নেত্রীর (দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নৌকার বাইরে গিয়ে নির্বাচন করার মনমানসিকতা নেই। দলীয় প্রার্থীর জয়ের জন্য কাজ করবেন তিনি।

নৌকার অপর মনোনয়নপ্রত্যাশী বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর জানান, নৌকা পেলে নির্বাচন করার প্রস্তুতি ছিল। নেত্রী বর্তমান সংসদ সদস্য, পরিবেশমন্ত্রীকে নৌকা দিয়েছেন। তাঁর জন্য কাজ করবেন তিনি। দলীয় পদধারী বা আ’লীগের সমর্থক কেউ এ আসনে ডামি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে নেই বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

এ আসনে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী আহমেদ রিয়াজ উদ্দিন, তৃণমূল বিএনপির আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, সিলেটের জনপ্রিয় ধর্মভিত্তিক সংগঠন আল ইসলাহ নেতা কাজী ময়নুল ইসলাম ও ব্যবসায়ী ফারুক আহমেদ (ভান্ডারী) স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

 

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

মৌলভীবাজার-১ আসন ডামি প্রার্থী পায়নি আওয়ামী লীগ!

আপডেট সময় ১২:১৯:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩

ডেস্ক রিপোর্টঃ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর পাশাপাশি ডামি প্রার্থী রাখার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে অনুযায়ী দেশের প্রায় প্রতিটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের অন্য প্রার্থীরা স্বতন্ত্র পদে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু মৌলভীবাজার-১ (জুড়ী-বড়লেখা) আসনে আওয়ামী লীগের কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থী হননি। পার্শ্ববর্তী কুলাউড়া আসনে আওয়ামী লীগের তিন প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচনের ঘোষণা দিলেও মৌলভীবাজার-১ আসনে দলীয় ডামি প্রার্থী নেই।

জানা যায়, ২০১৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামী লীগের একমাত্র প্রার্থী ছিলেন শাহাব উদ্দিন আহমদ। এর আগে টানা দুইবারসহ তিনবারের সংসদ সদস্য ছিলেন তিনি। এক সময়ের দাপুটে নেতা সিরাজুল ইসলাম, ইমান উদ্দিন আহমদের পর এ আসনে আওয়ামী লীগের উপযুক্ত নেতৃত্ব তৈরী হয়নি। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে শাহাব উদ্দিন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হওয়ার পর সিরাজুল ইসলাম দলে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। এরপর স্থানীয় পর্যায়ে আ’লীগে যে নেতৃত্বশূন্যতা দেখা দেয় সেটা ২০২৩ সালেও বিরাজ করছে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে নৌকার জন্য ৫ জন প্রার্থী মনোনয়ন চাইলেও বর্তমান এমপি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী শাহাব উদ্দিনকেই বেছে নেয় দল। এই আসনে ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, কুলাউড়া থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম দলীয় মনোনয়ন কেনেন। তবে তাদের কেউই ডামি প্রার্থী হতে আগ্রহী নন।

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন তরুণ নেতা হিসেবে এ এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নৌকার বিপক্ষে গিয়ে নির্বাচন করতে আগ্রহী হননি। এ প্রসঙ্গে সমকালকে জাকির হোসাইন বলেন, এই দুই উপজেলার মানুষ নানাভাবে অনুরোধ করছে বিদ্রোহী প্রার্থী হতে। কিন্তু নেত্রীর (দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নৌকার বাইরে গিয়ে নির্বাচন করার মনমানসিকতা নেই। দলীয় প্রার্থীর জয়ের জন্য কাজ করবেন তিনি।

নৌকার অপর মনোনয়নপ্রত্যাশী বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর জানান, নৌকা পেলে নির্বাচন করার প্রস্তুতি ছিল। নেত্রী বর্তমান সংসদ সদস্য, পরিবেশমন্ত্রীকে নৌকা দিয়েছেন। তাঁর জন্য কাজ করবেন তিনি। দলীয় পদধারী বা আ’লীগের সমর্থক কেউ এ আসনে ডামি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে নেই বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

এ আসনে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী আহমেদ রিয়াজ উদ্দিন, তৃণমূল বিএনপির আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, সিলেটের জনপ্রিয় ধর্মভিত্তিক সংগঠন আল ইসলাহ নেতা কাজী ময়নুল ইসলাম ও ব্যবসায়ী ফারুক আহমেদ (ভান্ডারী) স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।