1. mrrahel7@gmail.com : Admin : Mahbubur Rahel
  2. samadpress96@gmail.com : Samad Ahmed : Samad Ahmed
হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে লালতীরের হাইব্রিড চিচিঙ্গার বাম্পার ফলন..কৃষকের মুখে হাসি | moulvibazar24.com
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
মৌলভীবাজার ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা চলতি বছরের শেষ নাগাদ দেশে ৫জি সেবা চালু করা হবে:সজীব ওয়াজেদ জয় লন্ডনে ব্রিটিশ-বাংলাদেশি তরুণীকে হত্যা সরকারি গাড়ি চুরির পর দুর্ঘটনা,পথেই ফেলে পালাল চোর মৌলভীবাজার জেলা কারাগারে কারাবন্দীদের মাদকের কুফল সম্পর্কে অবগত করার জন্য মাদক বিরোধী আলোচনা সভা পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ শ্রীমঙ্গলে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান কমছে মৌলভীবাজারে করোনা আক্রান্ত রোগী শ্রীমঙ্গল চা ব্যবসায়ীদের নিয়ে ফিনলে টি কোম্পানির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন কুয়েত এর আয়োজনে এশিয়ান ড্রেজার লিগ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে লালতীরের হাইব্রিড চিচিঙ্গার বাম্পার ফলন..কৃষকের মুখে হাসি

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১

এসএম সুরুজ আলী: এবার চিচিঙ্গার বাম্পার ফলন হয়েছে। বিশেষ করে চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে লালতীরের হাইব্রিড চিচিঙ্গা পদ্মা জাতটি জমিতে মাচা তৈরী করে চাষ করেছেন। চিচিঙ্গার মাচাগুলো দেখলেই সকলের চোঁখ জুড়ায়। সম্প্রতি চুনারুঘাটের সুন্দরপুর গ্রামের কৃষক ফিরোজ মিয়ার জমিতে গিয়ে দেখা গেছে মাচায় দুলছে শত শত লালতীর এর হাইব্রিড পদ্মা চিচিঙ্গা।

সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, সুন্দরপুর গ্রামের কৃষক ফিরোজ মিার ২৫ শতক জমিতে সবুজে ভরে গেছে আর পাতার নিচে দুলছে সোনালী ফসল চিচিঙ্গা আর চিচিংগা,দেখলেই চোখ জুড়িয়ে যায় ফলনের যাদুতে। কৃষক ফিরোজ মিয়া জানান, তিনি স্থানীয় বীজ ডিলার থেকে লালতীরের হাইব্রিড চিচিঙ্গা পদ্মা জাতটি তার ২৫ শতক জমিতে চাষ করেছেন। এখন ফলন তোলা শুরু করেছেন ইতিমধ্যে তিনি প্রায় তিন বার ফসল তুলেছেন। প্রথম দফায় তিনি ফসল পেয়েছেন প্রায় ১ হাজার কেজি। প্রতি কেজির দাম পেয়েছেন ১৫ টাকা করে। পরবর্তী দুই ধাপে ও প্রায় দেড় কেজি বিক্রি করেছেন। এখনে প্রতি তিন দিন পর পর তিনি বিক্রি করে চলছেন। এখন পর্যন্ত তিনি ৩৭ হাজার ৫শ টাকার চিচিঙ্গা বিক্রি করেছেন।

জমিতে যে ফসল দেখা যাচ্ছে। এতে তিনি ওই সমপরিমাণ টাকার চিচিঙ্গা বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, ২৫ শতক জায়গায় উৎপাদন খরচ হয়েছে ৭ হাজার টাকা। ওই জাতটির চমৎকার ফলনে তিনি অত্যন্ত খুশি। জমিতে এ ধরণের ফলন দেখে আমি সত্যিই আশ্চর্য হয়েছি। এতো পরিমান ফলন চিচিঙ্গার আগে কখনো জমিতে ফলেনি। এবার তিনি অনেকটা আক্ষেপ করে বলেন, বাজারে পাইকারি যে দর এখন চলছে ৯ টাকা পর্যন্ত নেমে এসেছে দাম। এ রকম পর্যায়ে থাকলে কৃষকের জন্য উৎপাদনটা অনেকটা বিষফোঁড়ার মত হয়ে যাবে। তিনি সঠিক দরদাম পেলে আরো নিত্য নতুন সবজি চাষ করে এলাকার কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে চান। তার জমির বাম্পার ফলে এলাকার অনেকেই এখন চিচিঙ্গা চাষে এগিয়ে আসছেন।

এ ব্যাপারে কথা হয়, বীজের উৎস প্রতিষ্ঠান লাল তীর সীড লিমিটেড ডিভিশনাল ম্যানেজার তাপস চক্রবর্তী সাথে তিনি জানান, হাইব্রিড চিচিঙ্গা পদ্মা আকারে ৪০ থেকে ৫০ সেন্টিমিটার লম্বা হয়। এর রং উজ্জ্বল সবুজ, সাদা দাগ কাটা। ফলের ওজন ২শ থেকে আড়াইশ গ্রাম। জাতি চাষ করতে প্রতি শতাংশে ২০ গ্রাম বীজ এর দরকার হয়। উত্তম পরিচর্যায় ৪০ থেকে ৪৫ দিনের ভিতরে ফসল সংগ্রহ করা যায়। স্বল্প সময়ে অধিক ফলন দেয়ার জন্য এ জাতটি ইতি মধ্যেই অধিক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে বাজারে কৃষক উপযুক্ত দাম না পেলে এরকম নতুন নতুন ফসল উৎপাদনের আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। যা আমাদের কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাই আমাদের সকলের উচিত একতাবদ্ধ হয়ে কৃষকের ন্যায্য মূল্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করা।

 

এ সংক্রান্ত আরোও নিউজ