বাংলা বর্ণমালা নিয়ে গর্ববোধ করি

70

আসসালামু আলাইকুম ম্যাম! আপনি আমাদের মৌলভীবাজার এর অভিভাবক। আপনার সৃজনশীল কর্মে আপনি মৌলভীবাজার তথা সিলেটবাসীর অন্তরে এক বিশেষ জায়গা করে নিচ্ছেন অতি দ্রুত। আপনার কাছে সামাজিক মাধ্যমে আরজ করছি যে আমরা সবাই (বাংলাদেশি) বাঙ্গালী আমাদের ভাষা শহীদদের অত্যন্ত শ্রদ্বাঞ্জলি জ্ঞাপন করে থাকি। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে (শহীদ দিবসে) সর্বস্তরে বাংলা প্রচলন এর জন্য দেশের প্রধান নির্বাহী থেকে বুদ্বিজীবি সহ আমজনতা সকলে সারাদিন ব্যপী নানা দাবী জানিয়ে থাকি। সাড়া পৃথিবীর মধ্যে একমাত্র বাঙ্গালী জাতি ভাষার জন্য বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছে। বাংলা বর্ণমালা নিয়ে সেদিন সকলে কতো গর্ববোধ করি। ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার, রফিক, শফিক, ররকত নিয়ে কিযে উচ্ছাস। প্রাণে কত আনন্দ, চোখঁ জুড়ে আনন্দাশ্রু। কিন্তু ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সেই আমরাই বাংলা ভাষাকে বাংলিশ করে কথা বলি। ইংলিশ সুরে বাংলায় কথা বলে নিজকে শিক্ষিত রুচিশীল, আধুনিক করার চেষ্টা করি কেন? ফেব্রুয়ারী মাসে আপনি লক্ষ করবেন বিভিন্ন সিটি কর্পোরেশন, জেলা প্রশাসন ইংলিশ সাইনবোর্ড গুলিকে কালি দিয়ে- লেপ্টে দিচ্ছেন। আর সাড়া বছর ব্যপী আমরা বাংলা কে ভুলে কতো ঢংয়ে, কতো সুরে হিন্দি বাত বাতিয়ে। কিংবা এক বাক্যে দুতিন টি ইংলিশ শব্দ মিশিয়ে গলার স্বর এদিক ওদিক করে কি ফুটানি না করি। কারণ এটি করলে উচ্চস্তরে আমরা চাকুরী (সরকারী /বেসরকারি দুই ক্ষেত্রে) খেত/ক্ষেত হিসাবে চিহ্নিত হইনা। আপনার কাছে শেয়ার করে জানতে চাই- আমাদের এ দ্বিচারিতা কেন? আমরা ভাষা শহীদ ও বাংলার সাথে এই তামাশা কেন করি। আর তিনমাস বাকী ফেব্রুয়ারি আসলে আপনি আমি সরকার, রাষ্ট্র সবাই খালি পায়ে কালো চাদর পড়ে কতো ভাব গাম্ভীর্যের সাথে শহীদ দিবস কে আমরা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বানিয়েছি, আমাদের কতো অহংকার। কিন্তু পরে রাষ্ট্র, সরকার, আমরা ভুলে যাই কেন? উর্দু সরেছে কিন্তু হিন্দি গেড়েছে এখন এভাবে চললে যে আমরা যখন থাকবো- না তখন বাংলা যে নির্মূল হবেনা তা কি নিশ্চয়তা দেয়া যায়। আমার মেয়ে বলে ভারতে গেলে সে হিন্দি বাত বাতিয়ে (কথা বলবে)। যাহুক আমি গতকাল আামাদের সদর হাসপাতালে গিয়েছিলাম, আমিতো অবাক প্রতি দরজার সামনে পুড়ো ইংরাজি হরফে কঠিন কঠিন সব শব্দ লেখা। সত্যি ম্যাম আমি সব শব্দের অর্থ বুজিনি। আর আমাদের সাধারণ, শ্রমজীবী, মেহনতি ভাই বোনেরা কি বুজবেন আমি জানিনা। আপনিয়ো নিশ্চয় বিষয়গুলি লক্ষ্য করে থাকবেন। যে কোন ভাষা শিখা বিশেষ করে ইংরেজী ভাষা শিখা তো আমাদের অতীব প্রয়োজন। কিন্তু বাংলিশ দিয়ে- তো ইংরেজি হয়না- আবার বাংলাও থাকেনা। আপনার মাধ্যম সদাশয় সরকার, দেশের বুদ্বিজীবি, আমলা সকল সুশীল সমাজের প্রতি, শিক্ষাবিদ এর প্রতি আকুল আবেদন আামাদের মুখের ভাষা, রক্ত দিয়ে- কেনা বাংলা ভাষাকে বাচান। ভাষা শহীদ এর আত্মত্যাগ কে সদা সর্বদা জাগ্রত রাখি। জয় বাংলা!! আমরি বাংলা ভাষা। ধৈর্য সহকারে পড়ার জন্য আপনার কল্যাণ ও শান্তি কামনা করি।

ভুল ত্রুটি মার্জন করবেন- আহমদ, এক্সিম ব্যাংক, মৌলভীবাজার।