কমলগঞ্জে অজ্ঞাত মস্তক বিহীন লাশের পরিচয় সনাক্ত হত্যাকারীকে আটক

0
5176
Spread the love

উপজেলা প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে পুলিশের সক্রিয় ভূমিকায় ২৪ ঘন্টার মধ্যেই অজ্ঞাত মস্তক বিহীন লাশের পরিচয় সনাক্ত সহ হত্যাকারীকে আটকের পর তার তথ্য অনুযায়ী ৬ ঘন্টা তল্লাশির পর দেহ হতে শিরচ্ছেদ হওয়া মস্তকটি ধানের জমির নীচ থেকে উদ্ধার ও হত্যার চাঞ্চল্যকর তথ্য বের করলো কমলগঞ্জ থানা পুলিশ।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মাধবপুর চা বাগান এলাকার ৩নং লাইনের শ্রমিক বলরাম নুনিয়ার (৫৮) ছেলে পান ব্যবসায়ী সুমন নুনিয়া (২৪) ছোট বোন মুন্নি নুনিয়ার বাড়ি মির্তিংগা চা বাগানের উদ্যেশে গত শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় মাধবপুর চা বাগান থেকে রওয়া দেওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ হয়,গত সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৫ টায় মিরতিংগা চা বাগানের গুটিবাড়ী নামক নির্জন এলাকায় নালার মধ্যে মস্তকবিহিন একটি লাশে খবর পেয়ে,লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।মিরতিংগা চা বাগান থেকে একটি লাশ উদ্ধারের খবর শুনে মঙ্গলবার সকালে মাধবপুর চা বাগানের নিখোঁজের পরিবার থানায় গিয়ে মস্তক বিহীন লাশটির শরীরের কিছু চিহ্ন দেখে লাশটি নিখোঁজ সুমন নুনিয়ার বলে দাবী করেন। এ তথ্যের সূত্র ধরে কমলগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক ওসি বদরুল হাসানের নেতৃত্বে এসআই ফরিদ মিয়া সহ পুলিশের একটি দল হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে হত্যাকারী মিরতিংগা চা বাগানের চা শ্রমিক বদরী তন্তবাই (৫০) ও তার ছেলে কান্ত তন্তবাই পুতুল (২৪) কে তাদের বাড়ী থেকে আটক করে। তারপর কান্ত তন্তবাই পুতুলের তথ্য মতে এসআই ফরিদের নেতৃত্বে পুলিশ জনপ্রতিনিধি সাংবাদিক সহ তাকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্হলে তল্লাশিতে করতে নামে। ঘটনাস্হলে গিয়ে তালবাহানা শুরু খুনী কান্ত তন্তবাই পুতুল।তার জন্য ৬ ঘন্টা বেগ পেতে হয় পুলিশকে।পরে জেরার মুখে সে স্বীকার করে মাথা কোথায় লুকিয়ে রেখেছে। রাত সাত টার দিকে বাগানে ৪নং সেকশন এলাকার একটি ধানি জমির মাটির নীচ হতে শিরচ্ছেদ মাথাটি ও নিহত সুমনের পরিহিত পোশাক পলিতিনে মোড়ানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। নিহত ব্যক্তির বাড়ি
মাধবপুর চা বাগানের বলরাম নুনিয়ার সাত সন্তানের মাঝে তৃতীয় সন্তান পান ব্যবসায়ী সুমন নুনিয়া। একই উপজেলার মিরতিংগা চা বাগানে ছোট বোন মুন্নী নুনিয়ার (২২) বাড়ি যাচ্ছে বলে শুক্রবার বাড়ি থেকে বের হয়েছিল। শুক্রবার রাত আট টায় সে (সুমন নুনিয়া) মুঠোফোনে (০১৭২৪০০৪৮৩৪) কথা বলার পর থেকে ফোনটি বন্ধ হয়ে যায়। এর পর পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করেও তাকে পায়নি। সোমবার বিকালে মিরতিংগা চা বাগানের ২০ নং সেকশনের গুটি বাড়ী এলাকায় একটি নালার মধ্যে মস্তকবিহিন অজ্ঞাত পরিচয়ের লাশ দেখতে পান বাগান পাহারাদার কৃষ্ণ অলমিক। এ দিকে মঙ্গলবার দুপুরে মাধবপুর চা বাগানে সুমন নুনিয়ার বাসায় গিয়ে দেখা যায় তার আত্মীয় স্বজনদের মাঝে চলছে শোকের মাতম ।

কমলগঞ্জ থানার ওসি বদরুল হাসান লাশের পরিচয় বের হওয়া আর হত্যার সাথে জড়িত বাবা ছেলেকে আটক ও তাদের স্বীকারোক্তির সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে নারী ঘটিত ঘটনায় এই হত্যাকান্ড ঘটেছে।


Spread the love

LEAVE A REPLY